ক্যানসার আক্রান্ত পশু-পাখির মাংস চিনে ফেলুন এবার সহজেই

0
6947

বাঙালি অথচ খেতে ভালোবাসেনা এরকম বাঙালি খুঁজে পাওয়া মুশকিলের নয় দুস্কর বলা যেতে পারে। একরকমের নয় ভিন্নরকমের খাওয়ারের স্বাদ নেওয়াই বাঙালির স্বভাব। আজ ভাগ বসাচ্ছেন মিষ্টিতে তো কাল মাংশ অবশ্যই চাই ‘ এরকমই ভোজনরসিক স্বভাবের। খাই খাই বাতিক বাঙালির সবসময়ের স্বভাব। আর এরকমই খাদ্যাভাসে যে অনিয়ম বেনিয়ম স্বীকার হননা তারা এমনটাও নয়। অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভাস, কর্মব্যস্ত জীবনযাত্রায় কখন, কী খাবার, কতটা নিয়ম মেনে খাওয়া উচিত তা সব সময় মেনে চলা সম্ভব হয় না। তার মধ্যে যোগ হয়েছে ভেজাল ভয়।

খাদ্যে বিষক্রিয়া, ভেজালে আমরা মৃত্যুর দিকেও এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। তবে একটু চেষ্টা করলেই সেসব ভেজালযুক্ত খাদ্য শণাক্ত করতে পারি আমরা। যেমন, মাংস কেনার সময় একটু সচেতন থাকলে বুঝে যাবেন, যে মাংস কিনছেন তা ক্যানসার আক্রান্ত পশু বা পাখির কি-না। ক্যানসার বিশেষজ্ঞদের মতে, এমনিতেই চার পাশের দূষণ ও নানা রাসায়নিকের প্রভাবে আজকাল ক্যানসার আক্রান্তের সংখ্যা দিনে দিনে বাড়ছে। তার উপর প্রক্রিয়াজাত মাছ, মাংস থেকেও তা ছড়ায়। এখন কেনার সময় যদি অন্তত কিছু সচেতনতা অবলম্বন করা যায়, তা হলে অসুখ থেকে কিছুটা অন্তত দূরে থাকা যায়।

কিন্তু কেনার সময় কী ধরনের সাবধানতা নিতে হবে জানেন? কিছু সহজ পদ্ধতিতেই দেখে নিতে পারেন কেনা মাংসে ক্যানসারের বীজ রয়েছে কি-না।

১. মাংস কেনার সময় প্রথমেই লক্ষ করুন তার রং কি-না। লালচে বা গোলাপি মাংস হলে ধরে নিতে হবে তা টাটকা। কিন্তু ধূসর মাংস মানেই তা বাসি। তাই এড়ান ধূসর মাংস। এবার এই লালচে বা গোলাপি মাংসের গায়ে হঠাৎ কোনও কোনও জায়গায় কিছুটা অংশ জুড়ে ধূসর বা ফ্যাকাশে রঙের কোনও দাগ আছে কি-না লক্ষ করুন। তেমন দাগ থাকলে আগে বাদ দিন সেই মাংস। সাধারণত, ক্যানসার আক্রান্ত পশুর মাংসে এই রকম দাগ দেখা যায়।

২. মাংস কেনার আগে ভালমতো উল্টেপাল্টে দেখুন। বাড়তি বা অস্বাভাবিক মাংসপিণ্ডের অস্তিত্ব রয়েছে কি? তাহলে এই মাংসে ক্যানসার জাতীয় অসুখের বীজ থাকার সম্ভাবনা খুবই বেশি। এড়িয়ে চলুন সেটিও।

৩. মাংসের কোনও অংশে কালচে কোনও দাগ রয়েছে কি? টাটকা রঙের মাংসের গায়েও তেমনটা থাকলে সচেতন হোন। এ ছাড়া অন্যান্য অসুখ ঠেকাতে সব ধরনের মাংসই বাড়িতে এনে ধোওয়ার পর কিছু ক্ষণ গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এতে মাংস নরমও হবে, তা ছাড়া কোনও ছোটখাটো সংক্রমণ থাকলে তাকেও এড়ানো যাবে। কিন্তু ক্যানসারের মতো বড় অসুখ ঠেকাতে এই পদ্ধতি অবলম্বন করে কোনও লাভ নেই। সে ক্ষেত্রে মাংসটি বাতিল করাই একমাত্র উপায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here