মনোবিদদের মতে, কেমন স্বভাবের মেয়েরা প্রেমিকা ও স্ত্রী হিসাবে অতি উত্তম, জানলে চমকে যাবেন

0
142

প্রেমিকা বা স্ত্রী হিসেবে কেমন নারী পছন্দ আপনার? শান্ত, নম্র, ভদ্র স্বভাবের মেয়েকে নিশ্চয়। অধিকাংশ পুরুষ মনে করেন, শান্ত স্বভাবের মেয়েরাই ভালো প্রেমিকা বা স্ত্রী হয়ে উঠতে পারেন।

কিন্তু মনোবিদদের মতামত তার ঠিক তার উল্টোটা। তাঁদের ধারণা, চঞ্চল স্বভাবের মেয়েরাই প্রেমিকা ও স্ত্রী হিসেবে উত্তম রূপে ধরা দিতে পারবেন। কিন্তু এর কারণটা কী, জেনে নিন এর পেছনে যে ৭টি কারণ, যা ব্যাখ্যা করেছেন খোদ মনোবিদরা:

১) মানুষ হিসেবে নির্ভেজাল: বিজ্ঞানীদের মতে, এই ধরণের মেয়েরা আসলে যেমন, তেমনটাই সকলের সামনে থাকেন। ভেক ধরার ধার ধারেন না। আপনি নিজের চোখে একবার দেখেই বুঝতে পারবেন তার দোষ-গুণের মধ্যে কী কী রয়েছে। এঁরা নিজেদের দোষ ঢাকতে মিথ্যার আশ্রয় নেন না। মানুষ হিসাবেও খুব সত্‍ হন।

২) অসাধারণ প্রেমিকা: গবেষণার পর এক বিজ্ঞানী তথা মনবিদ বলেছেন, ‘আদর্শ প্রেমিকা বলতে যা বোঝায় এঁরা তাই। ভালোবাসার জন্য আলাদা কোনও দিনের প্রয়োজন হয় না। এরকম কেউ সঙ্গে থাকলে যে কোনও দিনকে প্রেমের দিন বলে মনে হতে পারে। বিয়ের পরে অনেকের ক্ষেত্রেই প্রেম-জীবন পানসে মনে হয়। কিন্তু এঁদের ক্ষেত্রে কথাটি একেবারে খাটে না।’

৩) সুন্দরের প্রতি প্রেম: গবেষণার পর আরও জানা গিয়েছে, সৃজনশীল মস্তিষ্কের কারণেই এঁরা আর পাঁচজনের থেকে অনেকটা পৃথক হন। জীবনে, মননে এঁরা খুব সৃজনশীল প্রকৃতির হয়ে থাকেন। ‘আউট অফ দ্য বক্স’ ভাবতে এঁদের তুলনা হয় না।

৪) ন্যাকামি না পসন্দ: সে ট্রেকিংই হোক বা ঘরোয়া পার্টি, এঁরা মহিলা হিসেবে কখনও আলাদা সুবিধা দাবী করে বসেন না। যেখানে যেমন, সেখানে তেমন ভাবেই থাকতে পছন্দ এরা বেশি পছন্দ করে। তাই ঘুরতে বেরিয়ে বা ট্যুরে গিয়ে কখনও এঁদের নিয়ে সমস্যায় পড়বেন না।

৫) সব সময় আপনাকে আগলে রাখবে: এঁদের সামনে যদি স্বামী বা কোনও প্রিয়জনকে কেউ অপমান করেন, তাহলে তো আর রক্ষে নেই। যতক্ষণ না অপমানকারীকে তিনি মাথা নত করাচ্ছেন, তত ক্ষণ খান্ত হন না। (বিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: যদি স্বামী হিসাবে আপনিও কখনও তাঁকে অপমান করার চেষ্টা করেন, তবে আপনারও একই অবস্থা হবে কিন্তু)

৬) ফুল অফ এনার্জিতে: যাকে বলে এনারা সব সময় থাকেন একেবারে ‘হাই অন অক্টেন’ এবং মোটিভেটেড। শুধু নিজেরাই নন, এঁদের সঙ্গে যাঁরা থাকেন, তাঁরাও সান্নিধ্যের গুণে অনুপ্রাণিত হয়ে উঠতে বাধ্য। পাহাড় চড়া থেকে নতুন ব্যবসা শুরু করা, যে কোনও ক্ষেত্রেই এঁরা কখনও আপনার পাশ থেকে সরে যাবেন না।

৭) হার না মানা মনোভাব: এঁদের মনের জোর এতটাই বেশি হয়, যে এঁরা হার মানতে জানেন না। অনেকেই যে পরিস্থিতিতে হাঁপিয়ে উঠবেন বা নিয়তির ওপর নিজেকে সঁপে দেবেন, এঁরা সে পরিস্থিতিতে লড়াই চালিয়ে যাবেন। যতক্ষণ না জিতে যাচ্ছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here